1. mohammadrakib230@gmail.com : dailymohanogor :
রাজশাহীতে শতবর্ষী গাছ রক্ষার দাবি এলাকাবাসীর "গাছ কাটতে বাধার মুখে ঠিকাদার - দৈনিক মহানগর 24.কম

রাজশাহীতে শতবর্ষী গাছ রক্ষার দাবি এলাকাবাসীর “গাছ কাটতে বাধার মুখে ঠিকাদার

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ২৩ জুন, ২০২১
  • ১৯ দেখুন

মোঃ পাভেল ইসলামঃরাজশাহীর পবা উপজেলা দামকুড়া থানার সামনে মধুপুর বটতলা এলাকায় শতবর্ষী একটি পাইকর গাছ কাটতে গিয়ে এলাকবাসীর বাধার মুখে পড়েছেন ঠিকাদারের লোকজন।

বুধবার (২৩ জুন) সকালে গাছটি না কাটার দাবিতে এলাকাবাসী মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন।

জানা যায়, জেলা পরিষদ থেকে টেন্ডারের মাধ্যমে সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে কাশিয়াডাঙ্গা হতে কাঁকনহাটে তিলাহারী পর্যন্ত মোট ১৯ টি গাছ দুই লাখ ৭৯ হাজার ৫০০ টাকা দিয়ে কাটার টেন্ডার পায় মেসার্স বকুল এন্টারপ্রাইজ। কেটে ফেলা গাছের তালিকায় মধুপুর বটতলা এলাকায় শতবর্ষী পাইকর গাছটিও রয়েছে।

তবে এলাকাবাসী গাছটি রক্ষায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন। এ জন্য পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত একটি আবেদন জেলা প্রশাসক বরাবর পাঠানো হয়েছে। সেখানে স্থানীয় শতাধিক ব্যক্তির স্বাক্ষর রয়েছে।

আবেদন উল্লেখ করা হয়, গাছটির বয়স একশ’ বছরের বেশি। এই গাছের নিচে শত শত মানুষ বিশ্রাম করে। এছাড়া হাজারো পাখি এই গাছে বসবাস করে। গাছটি কেটে ফেললে একদিকে যেমন জনগণের বিশ্রামের স্থান নষ্ট হবে। তেমনি পাখি হারাবে তার নিবাস।

পবা উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক তফিকুল ইাসলাম বলেন, এই গাছ আমার বাবা-দাদার আমলের। আমাদের গ্রাম ও মোড়ের পরিচিতি হিসেবে এই গাছ ব্যবহার হয়। এখানে অনেক পথিক গরমে এবং বৃষ্টিতে আশ্রয় নেয়। একইসঙ্গে অনেক পাখির বসবাস এই গাছে। তাই কোনোভাবেই এই গাছ কাটতে দেওয়া হবে না।

দামকুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুব আলম জানান, গাছটি একদিন কাটতে এসেছিল। কিন্তু এলাকাবাসী তাদের ফিরিয়ে দিয়েছেন।

গাছ কাটার টেন্ডার পাওয়া ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেসার্স বকুল এন্টারপ্রাইজের মালিক বকুল হোসেন বলেন, জেলা পরিষদ থেকে টেন্ডারের মাধ্যমে সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে কাশিয়াডাঙ্গা হতে কাঁকনহাটে তিলাহারী পর্যন্ত মোট ১৯টি গাছ দুই লাখ ৭৯ হাজার ৫০০ টাকা দিয়ে কিনে নিয়েছি। সব টাকা পরিশোধও করা হয়েছে। করোনার কারণে গাছ কাটতে পারিনি। এখন গাছ কাটতে যাওয়ার কথা শুনে এলাকবাসী বাধা দিচ্ছে। এ বিষয়ে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবরে একটি আবেদন করেছেন বলে জানান তিনি।

বকুল হোসেন বলেন, গাছের বাজারমূল্য এলাকাবাসী পরিশোধ করলে আমি গাছ কাটবো না। বিষয়টি সুষ্ঠু সমাধানে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন ঠিকাদার বকুল।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
© Copyright 2019 All rights reserved dailymohanogor24
Customized BY NewsTheme